ব্রেকিং নিউজ

বান্দরবানে এসআরএইচআর ও জেন্ডার বিষয়ক তিনদিনব্যাপী প্রশিক্ষণের সমাপ্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক
বান্দরবানে আওয়ার লাইভস্, আওয়ার হেলথ্, আওয়ার ফিউচারস্ (ওএলএইচএফ) প্রকল্পের উদ্যোগে প্রকল্পের কর্মীদের এসআরএইচআর ও জেন্ডার বিষয়ক তিনদিনব্যাপী প্রশিক্ষকদের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মসূচী বৃহস্পতিবার (২৭ আগষ্ট) সমাপ্ত হয়েছে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে সিমাভী ও বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ (বিএনপিএস) এর সহায়তায় এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর আয়োজন করে স্থানীয় বেসরকারী সংস্থা অনন্যা কল্যাণ সংগঠন (একেএস)। এতে বান্দরবান জেলায় বাস্তবায়নকারী সংস্থা অনন্যা কল্যাণ সংগঠন (একেএস), গ্রাউস, তহজিংডং এর ওএলএইচএফ প্রকল্পের বান্দরবান সদর, রোয়াংছড়ি, থানচি উপজেলার মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও কর্মীগণ এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী পর্বে প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ্যে স্বাগত বক্তব্য রাখেন একেএস’র নির্বাহী পরিচালক ডনাই প্রু নেলী। উদ্বোধনী পর্বে তিনি বলেন, ‘আমরা মাসিক স্বাস্থ্য বা প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে অনেক কুসংস্কারের মধ্য দিয়ে বড় হয়েছি, আমাদের নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞান ভিত্তিক তথ্য জানার মাধ্যমে এসব বিষয়ে আরো অনেক বেশি সচেতন হতে হবে। নিজের প্রজনন ও যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো নিজেকেই নিতে জানতে হবে আর অন্যকে জানানোর ক্ষেত্রে অবশ্যই সঠিক তথ্য জানাতে হবে। সেই সাথে কমিউনিটি পর্যায়ে এসব বিষয়ে জানানোর ক্ষেত্রে কোন কোন ক্ষেত্রে কৌশলী হয়ে উপস্থাপন করতে হয়। আর এ সংক্রান্ত কৌশল ও ব্যবহারিক জ্ঞান বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণের কোন বিকল্প নেই। আমার প্রত্যাশা, আপনারা সবাই এই প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান গার্লস ক্লাবের মেন্টরদের প্রশিক্ষণ প্রদানের ক্ষেত্রে সফলভাবে ব্যবহারে সমর্থ হবেন। সেই সাথে মাঠ পর্যায়ে প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান প্রয়োগের মাধ্যমে প্রকল্প এলাকার কিশোরী ও যুবতী নারীদের জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে সমর্থ হবেন।’ সবশেষে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর সঠিক ব্যবহার ও স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশনা মেনে চলা উচিত।

পার্বত্য চট্টগ্রামের কিশোরী মেয়ে ও যুবতী নারীদের মর্যাদাপূর্ণ ও বৈষম্যহীন, সহিংসতামুক্ত জীবন গঠনে সহায়তা করার লক্ষ্যে এবং সর্বোপরি তাদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে পরিচালিত এই প্রকল্পের কর্মীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য এবং অধিকার (এসআরএইচআর), জেন্ডার বিষয়ে মৌলিক দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়। বান্দবানের ফরেস্ট হিল রিসোর্ট হল রুমে ২৫ থেকে ২৭ আগষ্ট তিনদিন ব্যাপী আয়োজিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর সমাপনী দিনে উপস্থিত ছিলেন গ্রাউস’র চেয়ারপার্সন মং থোয়াই চিং, তহজিংডং’র নির্বাহী পরিচালক চিং সিং প্রু এবং একেএস’র প্রকল্প পরিচালক দীনেন্দ্র ত্রিপুরা। প্রশিক্ষণ সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের মাস্টার ট্রেইনার সুমিত বণিক, গ্রাউস’র প্রকল্প সমন্বয়কারী সবুজ চাকমা। অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন একেএস’র প্রকল্প সমন্বয়কারী ম্যামিসিং মারমা ও তহজিংডং এর প্রকল্প সমন্বয়কারী রমেশ চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যা। সমাপনী দিনে আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ প্রশিক্ষণ পর্বের উপস্থাপনা পর্যবেক্ষণ করেন এবং পার্বত্য এলাকার প্রেক্ষিতে প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান প্রয়োগের ক্ষেত্রে কার্যকর উপায়গুলো সম্পর্কে নিজেদের অভিজ্ঞতা ও অভিমত তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।