ব্রেকিং নিউজ

কেন প্যানেল প্রয়োজন

————————————–
সকল প্রকার শিক্ষার ভিত্তি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো,ছোট ছোট সোনামণিদের যেভাবে ভিত্তি গড়ে দেওয়া হবে,সেই ভিত্তির উপর দাঁড়িয়ে যাবে তাদের ভবিষ্যৎ।

বুনিয়াদি শিক্ষার প্রথম হাতেখড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো, সেখানে নার্সিং করে একটি শক্তিশালী নাগরিক হিসেবে রুপান্তর করতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোনো বিকল্প নেই। এইসব প্রাথমিক বিদ্যালয়েগুলোতে শিক্ষক সংকট লেগেই থাকে,মাঠ পর্যায়ে জরিপ করলে দেখা যায় একটি স্কুল ৬ পোস্ট এর স্কুল,অথচ শিক্ষক আছে ৩/৪ জন,এখান থেকেই আবার একজন ডি পি এড করতে যাচ্ছে,ফলে প্রতিদিনের শ্রেণী কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।
জানুয়ারী থেকে বিষয় ভিত্তিক ট্রেনিং চলছে,সেখানে দেখা যাচ্ছে কোনো কোনো সময় বিদ্যালয়ে ১/২ জন শিক্ষক থাকছে,তাদের পক্ষে স্কুল চালানো অসম্ভব।

প্রতিদিন শিক্ষককরা রিটায়ার্ডে যাচ্ছে প্রতিদিন পদ শূন্য হচ্ছে কিন্তু প্রতিদিন তো আর শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছেনা,প্রতিদিন নিয়োগ দেওয়া সম্ভব না।

সেই নিয়োগ প্রতিবছর দেওয়ার কথা থাকলেও বিভিন্ন জটিলতায় দীর্ঘসূত্রতা তৈরি হয়,অনেক সময় বছরের পর বছর নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ থাকে। এমতাবস্থায় দেখা যায় চাকরি প্রার্থীরা চাকরি পরিক্ষায় বসার খুব বেশি সুযোগই পায়না।

এভাবেই অনেক চাকরি প্রার্থীর রঙ্গিন স্বপ্ন গুলোর দাফন হয়ে যায়।

আর এদিকে বিদ্যালয় গুলো বছরের পর বছর শূন্যপদ নিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলতে থাকে,এতে করে বিদ্যালয়ে মানসম্মত শিক্ষা দেওয়া যায়না।
যা কিনা সুনাগরিক তৈরিতে বিশাল অন্তরায়।

একটি নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হতে প্রায় দুই বছর লেগে যায়,নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হতে না হতেই সারা দেশে বিদ্যালয় গুলোতে হাজার হাজার পদ খালি হয়ে যায়।

যেমন ২০১৮ এর সার্কুলারে যারা নিয়োগ পেয়েছে,তাদের এ কার্যক্রম শেষ হলো ২০২০ সালে,অর্থাৎ এখানে দুই বছর লেগে গিয়েছে,তবুও কি পদ পূর্ণ করা সম্ভব হয়েছে? হয়নি।

এর মধ্যে প্রায় ২৮ হাজারের মতো পদ শূন্য হয়ে আছে।

বিশেষ করে কোভিট ১৯ করোনা ভাইরাসের দুর্যোগকালে শিক্ষাব্যবস্থা ব্যাপক ক্ষতি হয়ে গেলো, এই ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে গেলে পরিপূর্ণ শিক্ষক চাই।এই জন্য সরকারের নিকট আমি একজন প্রাথমিকের শিক্ষক হয়ে দাবি জানাই যে, ৩৭ হাজার প্যানেল প্রত্যাশিদের কে নিয়োগ দিয়ে তাদের কে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি দিন এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক সংকট দূর করে একটি মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষাদানে সহায়তা করুন।

মোঃ জামিল বাসার
সহকারী শিক্ষক
বওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
ধনবাড়ী,টাঙ্গাইল।