ব্রেকিং নিউজ

আইসোলেশন থেকে পালিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে গেল করোনা রোগী

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার আইসোলেশনে থেকে পালিয়ে গিয়ে করোনা আক্রান্ত এক যুবক ঈদের কেনাকাটা করতে যাওয়ায় একটি কাপড়ের দোকান লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

শনিবার (০৯ মে) বিকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসান দোকানটি লকডাউন ঘোষণা করেন।

এর আগে পার্শ্ববর্তী কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার বাজারের রুমা ক্লথ স্টোরে করোনা পজিটিভ ওই যুবক ঈদের কেনাকাটা করতে যান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস আক্রান্ত এক যুবক দুপুরের দিকে তুষভান্ডার বাজারের রুমা ক্লথ স্টোরে ঈদের কেনাকাটা করতে যান। তার বাড়ি পার্শ্ববর্তী আদিতমারী উপজেলায়। যুবককে দোকানে কেনাকাটা করতে দেখে স্থানীয় প্রশাসনকে খবর দেন তার এক প্রতিবেশী।

খবর পেয়ে পুলিশসহ ঘটনাস্থলে আসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবিউল হাসান। তবে তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় ওই যুবক।

পরে ওই যুবক যে দোকান থেকে কেনাকাটা করেছে- সেটিকে লকডাউন ঘোষণা করেন ইউএনও। পাশপাশি দোকানের মালিকসহ কর্মচারীদের করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।

জানা যায়, ওই যুবকের পরিবারের পাঁচ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। সম্প্রতি গাজীপুর থেকে আদিতমারী উপজেলায় আসা এক যুবকের সংস্পর্শে এসে তারা সবাই আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর থেকে তারা সবাই হোম আইসোলেশনে আছেন। এরই মধ্যে শনিবার আইসোলেশন থেকে পালিয়ে ওই যুবক পার্শ্ববর্তী কালীগঞ্জ উপজেলায় ঈদের কেনাকাটা করতে যান।

এ বিষয়ে ইউএনও রবিউল হাসান বলেন, করোনা আক্রান্ত ওই যুবক আমাদের উপজেলার না। খবর পেয়ে আমরা আসার আগেই সে পালিয়ে গেছেন। তার মাধ্যমে ওই দোকানের ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা সংক্রমিত হয়েছেন কি না জানতে তাদের নমুনা পরীক্ষার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরীক্ষার রিপোর্ট আসলে তা জানা যাবে। ততদিন পর্যন্ত দোকনটি লকডাউন করা হয়েছে।

তথ্য ও সূত্রঃ সময়ের কণ্ঠস্বর