ব্রেকিং নিউজ

সরস্বতী প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত টাঙ্গাইলের প্রতিমা শিল্পীরা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা উপলেক্ষে টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিমা শিল্পীরা। বিদ্যার দেবী মা সরস্বতী ছোট বড় নানা শ্রেনী-পেশার শিক্ষার্থী সহ সব বয়সের লোকজন বিদ্যা অর্জনের লক্ষ্যে সরস্বতী পূজা করে থাকে।

আগামী বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম এ পূজা।

আর এ পূজা উপলক্ষ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রতিমা তৈরিতে চলছে এখন ব্যাপক প্রস্তুতি। প্রতিমা শিল্পীর কল্পনায় দেবী সরস্বতী অনিন্দ্য সুন্দর রুপ দিতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ।

সরেজমিনে কালিহাতী পৌর এলাকার দক্ষিণ বেতডোবা গ্রামের দীনবন্ধু শিল্পালয়ে গিয়ে দেখা যায়, ইতি মধ্যে প্রতিমার কাঠামোর মাটির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। শুরু হয়ে গেছে রং ও সাজ সজ্জার কাজ।

দীনবন্ধু শিল্পালয়ের প্রতিমা শিল্পী মনোরঞ্জন পাল (২৫) বলেন, আর কয়েকদিন পরেই সরস্বতী পূজা। এ পূজাকে সামনে রেখে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছি। মাটির কাজ শেষে বর্তমানে প্রতিমায় রংয়ের কাজ করছি।

এদিকে দক্ষিণ বেতডোবা গ্রামের প্রতিমা শিল্পী নারায়ণ চন্দ্র পাল (৬৬) বলেন, প্রতিটি ছোট সরস্বতী প্রতিমা তৈরিতে খরচ হয় ২০০-২৫০ টাকা, বিক্রি – ৪০০-৫০০ টাকা, মাঝারি প্রতিমা তৈরিতে খরচ হয় ৬০০ টাকা, বিক্রি – ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা এবং বড় প্রতিমা তৈরিতে খরচ হয় ১৫ শত থেকে ২ হাজার টাকা, বিক্রি হয় ৪-৫ হাজার টাকা। সরস্বতী প্রতিমাগুলো তৈরির পাশাপাশি এখন বিক্রিও শুরু হয়ে গেছে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী পূজাকে ঘিরে এখন উপজেলার হিন্দু পাড়া মহল্লা গুলোতে আগাম উৎসবের আমেজ বয়ে চলছে। উচু-নিচুর বিভেদ ভুলে সমাজের সকলস্থরের মানুষকে একত্র করে মহা-মিলন হয় বলে এ পূজাকে বলা হয় সার্বজনীন পূজা। এছাড়াও বিদ্যা প্রাপ্তির আশায় এই পূজা করা হয় বলে এই পূজাকে বলা হয় জ্ঞানের উৎসব। তাই সরস্বতী পূজাকে সামনে রেখে এ উপজেলার প্রতিমা শিল্পীরা ব্যস্ত সময় পার করে চলেছে প্রতিমা তৈরিতে। প্রতিমা তৈরির পাশা পাশি সাজসজ্জার প্রস্তুতিও চলছে পুরোদমে।

স্থানীয় কারিগররা এখানে তৈরি করছে মাটির প্রতিমা। দেবীকে সাজিয়ে তুলছে যেনো এক নতুন রূপে। মা সরস্বতীকে বরণ করে নিতে প্রতিমা তৈরির কাজ ছাড়াও সাজসজ্জার কাজ চলছে ঠিক একই গতিতে, ঢাক, ঢোল বাদ্য যন্ত্র ঠিকঠাক করে নিচ্ছে বাদ্য শিল্পিরা।

মূর্তি গড়া শেষে মূহুর্তে রং তুলির আঁচড়ে মা সরস্বতীকে ফুটিয়ে তুলতে জেনো এখন দিন রাত নতুন নতুন সপ্ন বুনে চলেছে তারা।দেবীকে মহা আনন্দে বরণ করে নিতে সর্বত্র জেনো আনন্দ ঘন পরিবেশ বিরাজ করছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের শিশু, নারী-পুরুষসহ সব বয়সী মানুষ, বিদ্যা, জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যে উৎসবকে স্বার্থক করতে প্রহর গুনছে প্রতি মূহুর্তে। সব মিলিয়ে সুষ্ঠু এবং সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হবে পূজার সকল প্রস্তুতি এমনটা প্রত্যাশা যেনো সকলের।