ব্রেকিং নিউজ

সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা শাহীনের খোলা কথা

মোঃ জহির রায়হান- সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ
সিরাজগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও রাজপথ কাপানো কন্ঠস্বর সিরাজগঞ্জের দোয়াতবাড়ি এলাকার শাহীন তার ফেসবুকে লিখেছেন চারদলীয় দুঃ শাষনের সময়কার নির্যাতনের কথা ও বলেছেন বর্তমান আওয়মীলীগের অবস্থানের কথা। নিচে তার কথা তুলে ধরা হল।
“২০০১ সালে ৪দলীয় বিএনপি, জামায়াত পুলিশবাহিনী সাথে নিয়ে আমার বাড়ি-ঘর ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ করে এবং আমার বাবা মরহুম গাজী মোক্তাল হোসেন মাষ্টার (সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বাগবাটি ইউপি)সহ আমার ২সহোদর ভাইকে অবৈধভাবে মারপিট করে জেল-হাজতে প্রেরণ করে মিথ্যা মামলা দিয়ে ৬মাস ১৮দিন কারারুদ্ধ করে রাখে। তখন বিএনপি জামায়তরা আমার অসহায় পরিবারের আকুতি দেখে হাসি-তামাশা করতো এবং বলতো শাহীনকে জমা দিলে ওর বাবা-ভাইকে ছেড়ে দেয়া হবে।

আমি তখন গাঁ-ঢাকা দিয়ে নিদারুন কষ্টে ৮ মাস দেশের বিভিন্ন আনাঁচে-কানাঁচে পালিয়ে বেড়িয়েছি। তখন কিযে কষ্টে ছিলাম!আমার সমস্ত শরীরে ঘাঁ হয়ে পচন ধরেছিল, যা আমি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কখনো ভুলবো না।তার পরে আমার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতা মিথ্যা মামলা দায়ের করে আমাকে ২০০২সালের ১১এপ্রিল ধরে নিয়ে ১মাস ২৩দিন কারারুদ্ধ করে রাখে। তখন শুধু একমাত্র আমার মহান নেতা জনাব আব্দুল লতিফ মির্জা সাহেবই আমাকে দেখতে কারাগারে গিয়েছিলেন। আমার সেই নেতা আজ দুনিয়াতে নেই, আল্লাহপাক উনাকে জান্নাত নসিব করুন। আাবার ২০০২সালের ২জুন সিরাজগঞ্জ সরকারী কলেজে বিএনপি-জামায়াত ক্যাডার চক্র পুলিশের সহায়তায় ২৫/৩০জন আমাকে বেদম মারপিট করে পিস্তল দিয়ে ধরিয়ে দেয়।

আর ঐ সময়ে পুলিশ মাদারচোদ রবিউল সেকপন্ড অফিসার ও বাইনচোদ এস আই সালাউদ্দিন আমাকে থানায় নিয়ে যে অমানসিক নির্যাতন করেছিল তা কখনো ভুলবার নয়। আর এখন আমি যা দেখছি সিরাজগঞ্জ আওয়ামীলীগ সেই বিএনপি ও জামায়াতের দোসরদের নিয়ে মাঠে-ময়দানে দল ভারি করার অপপ্রয়াসে লিপ্ত। দুঃখ হয়, ঘৃণা লাগে কত কষ্ট ত্যাগ, যন্ত্রণা ভোগ করে সিরাজগঞ্জ রাজনীতি এতদুর পর্যন্ত নিয়ে আসলাম!আর এটাই কি তার ফল!ভাবতে অবাক লাগে এই ভেবে যে, আমরা নাহয় কোনভাবে সংকট পার হয়ে এসেছি, কিন্তু এই তেলেরবাটি মার্কা হাইব্রীট আওয়ামীলীগের ভবিষ্যৎকাল কি হবে!!!”

Leave a Reply