ব্রেকিং নিউজ

বিএনপি জামায়াতের মিথ্যা মামলায় প্রবাসে থাকা এক শ্রমিকলীগ নেতার গল্প

বিশেষ প্রতিনিধি-সিরাজগঞ্জঃ
সিরাজগঞ্জ জেলা সিএনজি শ্রমিক নেতা শফিকুল ইসলাম শফিক ২০১৪ সালের আগুন সন্ত্রাসের সময় নিজে শ্রমিকদের সাহস জুগিয়েছেন সাধারন মানুষের জন্য সিএনজি চালানো অব্যাহত রাখার জন্য। সেই শ্রমিক নেতা আজ মিথ্যা মামলায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন। পেটের দায়ে মালয়েশিয়ায় গিয়ে গত চার মাস হল দুর্ঘটনার জন্য পা ভেংগে যাওয়ায় খেয়ে না খেয়ে জীবন যাপন করছে।

তার নিজের লেখা কিছু কথা নিচে তুলে ধরা হল-
“২০১৪ সালে বিএনপি জামায়াতের অগ্নি সন্ত্রাসের হরতালে পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করার নামে যখন মেতে উঠেছিল তখন সারা বাংলাদেশের মত আমাদের সিরাজগন্জর সকল যানবাহন যখন পেট্রোল বোমার ভয়ে বন্ধ রাখলেন। আমাদের সিরাজগঞ্জের অহংকার প্রফেসর ডাঃ হাবিবে মিল্লাত এম পি মহোদয়ের নির্দেশে সব বাধা উপেক্ষা করে আমি জানের মায়া ত্যাগ করে সকল শ্রমিক ভাইদের সাথে নিয়ে রাস্তায় নিজে দারিয়ে থেকে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালাই।

তখন আমি সিরাজগঞ্জ জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পালন করি আজ আমিও একজন ভুক্তভোগী মিথ্যা মামলার স্বীকার বিএনপি জামায়াতের। আমাদের কয়েকটি সিএনজি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় দুজন শ্রমিক আগুনে পুড়ে যায় দুজন মারা যায়। এর কি কোন খবর কেও রাখে ? যারা ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কর্মীদের উপর ষ্টিম রোলার চালিয়েছে তাহারাই আজ পাওয়ার খাটায় তাহারাই আজ বড় আওয়ামী লীগ।

রেলগেটে বিএনপি এর কারনে যখন কথা বলা যায় নাই, তখন আমি এবং কতিপয় কয়েকজন মিলে রেলগেটে এ আওয়ামী লীগের ঘাটি গড়ে তুলি। যা অনেক আওয়ামীলীগ নেতাই জানে।আমার একটি সিএনজি পার্টস এর দোকান ছিল তা আমি রেলগেটে আমার শ্রমিকদের এবং আওয়ামী লীগ সংগঠিত করতেই ব্যবহার করি এবং এর ফলে আমার দোকান এবং আমি আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ হই কিন্তু তারপরেও কোন দিন করো কাছে যাই নাই
আগুনে পুড়ে যায় সিএনজি শ্রমিক আলহাজ চরমালসাপাড়া এবং মারা যায় সিএনজি যাত্রী শ্রী গোপাল মারয়ারীপ্রট্টি। আরও অনেকে আগুনে পুড়ে গেছে তাহাদের নাম এই মুহূতে মনে পড়ছে না ভাই। আমার বর্তমান পদবি সিরাজগন্জ জেলা সিএনজি জাতীয় শ্রমিক লীগের সিনিয়র সহসভাপতি এবং সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম শফিক।“

Leave a Reply