ব্রেকিং নিউজ

সরিষাবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানের সহায়তা না পেয়ে হিন্দুমুসলিম মিলে নির্মাণ করল পূজামণ্ডপের রাস্তা

ইসমাইল হোসেন সরিষাবাড়ী(জামালপুর) প্রতিনিধিঃ একই বিধাতার সৃষ্টি মনুষ্যজাতি। তাই প্রতিটি মানুষ জানে তার আত্মার স্বত্বা একজন। তবুও ধর্মের বিভাজন সৃষ্টি করেছেন মানুষ তার নিজেস্ব চৈতন্যে। উপাসনা করছেন বিভিন্ন রীতিনীতিতে বিভিন্ন সময়। আর এই উপাসনার নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব একমাত্র রাষ্ট্রের তথা রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের।

কিন্তু জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলায় পিংনা ইউনিয়নের কাওয়ামারা বারইপটল এলাকায় সনাতন ধর্মালম্বীদের যে মহাৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে সেখানে দর্শনার্থীদের আসা যাওয়ার রাস্তাটি আজ দীর্ঘদিন যাবৎ বেহালদশা। এলাকাবাসীর অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেনকে বারবার তাগিদ দেয়া শর্তেও তিনি কাজটি করেনি। শুধু মিথ্যে আশ্বাস দিয়েই যাচ্ছেন।

এদিকে দূর্গাপূজা এসে যাওয়ায় এবং ইউপি চেয়ারম্যানের কোন সাহায্য সহযোগিতা না পাওয়ায়। এলাকাবাসী নিজ উদ্যোগেই নিজেস্ব অর্থায়নে রাস্তাটি পুনঃনির্মাণ করেন বলে জানান সুদেব পাল। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন ঠিকমত পরিষদে আসেন না। তাকে ফোন দিলে বিভিন্ন অযুহাত দেখান এবং বিভিন্ন স্থানে আছেন বলে জানান। এদিকে দূর্গাপূজার দর্শনার্থীদের আসা যাওয়ার বেহালদশা দেখে এলাকার দুই ধর্মপ্রাণ মুসলিম ভাই, জীবন ও আঃ কাদের বিনাশ্রম দেন সেচ্ছায় সারাদিন।

জানা গেছে, ভেবল পাল ১ হাজার টাকা, শ্যামল পাল ৫ শ টাকা এবং হাফিজুর রহমান ৫’শ টাকা দিয়ে একগাড়ী বালু এনে রাস্তাটি পুনঃনির্মাণ করেন। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেনের কাছে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ঢাকায় আছি। তবে রাস্তাটি পুনঃনির্মাণের জন্য আমার লোকজনকে বলেছি তারা যাবে। কিন্তু কেউ আসেনি। তাই ইউপি চেয়ারম্যানের এমন অমানবিক আচরণের কারণে অন্তরালের গুণীমহল বলেন সংখ্যালঘুদের বর্ষীয় এই দূর্গা উৎসবে পাশে না থেকে ঢাকায় অবস্থান করা একজন জনপ্রতিনিধির কাজ নয়।

Leave a Reply