ব্রেকিং নিউজ

সরিষাবাড়ীতে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন মাননীয় তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ইসমাইল হোসেন সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধিঃ ইতিহাস সাক্ষী,এই বঙ্গভূমি একদিন গৌরাঙ্গের হিন্দুস্থান নামে খ্যাতিমান ছিল। ছিল তার কট্টরপন্থী ধর্মভীরু অনুশাসন আর আধিপত্য সাম্রাজ্য। কিন্তু সেই আধিপত্যের পতন ঘটাতেই মহান আল্লাহতালা স্বত্বা প্রেমী ভক্তদের পাঠিয়ে ছিলেন ইসলাম ধর্মকে প্রতিষ্ঠিত করতে।


যার অবিস্মরণীয় বাস্তবতা আজ আমরা মুসলমান এবং হযরত শাহ জালাল ও শাহ পরানের মত আউলিয়াদের মাজার শরীফ। জানা যায় সেই পবিত্র মহাআত্মাদের বংশানুক্রমের রক্তের সৃষ্টি ধর্মভীরু স্বত্বাপ্রেমী মুসলিম বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। তিনি স্বাধীনতার পর নানান প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়েও বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় ধর্মভীরু মুসলমানদের জন্য প্রতিষ্ঠিত করে ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন। যার বাস্তবায়ন কার্যকাল দীর্ঘ ৪৭ বছর পর পুনরায় শুরু করেছেন তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জানা যায়, পিতার স্বপ্ন ও প্রকৃত ইসলামকে জানা ও শিক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠিত করছেন বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা কর্তৃক ৫৬০ টি উপজেলা ভিত্তিক মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। যার একটি নির্মিত হচ্ছে জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলায়। গত ১৩ সেপ্টেম্বর রোজ শুক্রবার বাদজুম্মায় বিকেল ৩ ঘটিকায় উক্ত মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের ভবনটি ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রণালয়ের মাননীয় তথ্য প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ডাঃ মুরাদ হাসান এম.পি।

উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিহাব উদ্দিন আহমদ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন পাঠান উপজেলা চেয়ারম্যান, সরিষাবাড়ি পৌরসভার সুযোগ্য মেয়র রোকনুজ্জামান রোকন, সরিষাবাড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মাজেদুর রহমান, নিঃস্বার্থ পরোপকারী দানবীর জমিদাতা ৭নং কামরাবাদ ইউপি পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান এলিন,প্রকল্প বাস্তবায়ন গণপূর্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সকল সহযোগী সদস্যবৃন্দ ও যৌথ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ইসলাম ব্রাদার্স লিঃ ও তরফদার ট্রেড কর্পোরেশনের কর্মকর্তাবৃন্দ প্রমুখ ।

উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তারা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং বঙ্গকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিরন্তর শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানিয়ে দোয়া করেন। পরিশেষে উক্ত অনুষ্ঠানটি মিষ্টি বিতরণের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি করা হয় বলে জানা যায়।

Leave a Reply