ব্রেকিং নিউজ

অপহরণের ৮ ঘন্টা পর গৃহবধূ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার:মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশ্ববর্তী দোকানের সামনে থেকে প্রকাশ্য দিবালোকে এক সন্তানরে জননী হেনা আক্তার সুমা (২০) কে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায়।

অপহরণের ৮ ঘন্টা পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপহরণকারী মোঃ তুহিন মিয়াকে (২৬) আটক করে। তুহিন ঘিওর সদরে বাজারের পাশে মোঃ আমিনুর রহমানের ছেলে। ঘিওর থানা পুলিশ মানিকগঞ্জ কোর্টে প্রেরন করেছে।

জানাযায়, শনিবার সকাল ১১ টার দিকে হেনা আক্তার তার বোন নিপা আক্তার ও রুম্পা আক্তারকে সাথে নিয়ে ঘিওর বাজারে বিউটি পার্লারে যাবার পথে বাজারের ব্যবসায়ী মোঃ আমিনুর রহমানের ছেলে তুহিন মিয়া (২৬) জোর পূর্বক তাকে প্রথমে একটি অটো রিক্সায়, পরে সিএনজি করে টাংঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ভাদ্রা বাজারে নির্জন একটি এলাকায় তার চাচার বাড়িতে নিয়ে যায়।

এ সময় হেনা আক্তারকে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি দেখাতে থাকে । কোনো উপায় না পেয়ে হেনা আক্তারের বাবা মোঃ হানিফ বাদী হয়ে ঘিওর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এক পর্যায়ে ঘিওর থানার পুলিশ গোপন সুত্রে খবর পেয়ে হেনা আক্তারকে ঐ দিন রাতে উদ্ধার করে। এবং তুহিনকে আটক করে।

মামলার বাদী হেনা আক্তারের বাবা মোঃ হানিফ জানান, প্রায় দেড় বছর আগে বখাটে তুহিন তার মেয়েকে জোরপূর্বক বিয়ে করে। তাদের ঘরে ৭ মাসের একটি সন্তান রয়েছে। বিয়ের পরে যৌতুকের জন্য প্রচন্ড শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। পরে স্বেচ্ছায় আমার মেয়ে তাকে তালাক প্রদান করে।

এক পর্যায়ে তুহিন বিভিন্ন সময়ে রাস্তা ঘাটে আমার মেয়েকে কুপ্রস্তাব সহ নানাধরনের উক্ত্যক্ত করতো। ঘটনার দিন আমার মেয়েকে জোরপূর্বক অপহরন করে নিয়ে যায়। বর্তমানে আমাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকি দিচ্ছে। ফলে স্ত্রী সন্তান নিয়ে আমরা পুরো পরিবার নিরাপত্তার অভাবে ভুগছি।

ঘিওর থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আশরাফুল আলম জানান, আসামী তুহিনকে আটক করে কোর্টে প্রেরন করা হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা আছে।

Leave a Reply