ব্রেকিং নিউজ

পাগলের মত ভালোবাসালেও যে ১০ কারণে প্রেমিকা/স্ত্রী আপনাকে ছেড়ে যেতে পারে!

পুরুষ-মাত্রই জানেন নারীরা রহস্যময়ী এবং তারা কখন কি আচরণ করবে আগে থেকেই বোঝার কোনো সাধ্য নেই, যতক্ষণ না তারা আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে। আপনি যখন অন্য কাজে নিয়ে ব্যস্ত, তখন আপনার স্ত্রী/প্রেমিকা আপনার অজান্তেই নিজেকে সরিয়ে নেবে আপনার কাছ থেকে। এখানে এমন কিছু কারণ নিয়ে আলোচনা করা হলো, যার ফলে আপনাকে প্রচণ্ড ভালোবাসা সত্ত্বেও সে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে।

১০. সে আপনার উপর নির্ভর করতে পারছে না: যেসব নারী তাদের ব্যক্তি স্বাধীনতা ভালোবাসেন তারাও প্রিয়জনের মাঝে নির্ভরতা খোঁজেন। নারীর জীবনে এমন কিছু সময় আসে যখন একজন পুরুষকে তার পাশে আশা করে, যে কিনা তাকে বেশ গুরুত্ব দেবে। তাই সে যদি আপনার মাঝে তার প্রতি গুরুত্ব-হীনতা অনুভব করে, তাহলে ধরে নিতে হবে আপনাকে সে খুব শীঘ্রই ছেড়ে চলে যাচ্ছে।

৯.আপনার মন মত চলতে চলতে সে ক্লান্ত: আপনার মন মত আকর্ষণীয় শরীর ধরে রাখা, মজাদার সব রান্না করা, ভারি ভারি বই পড়া এবং আত্মীয়স্বজন-বন্ধুবান্ধবের সাথে যোগাযোগ রাখা-ইত্যাদি যখন তার উপর মানসিক চাপ হয়ে দাঁড়ায় তখন হাফ ছেড়ে বাঁচতে সে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে। আপনি নিজেই ভেবে দেখুন, আপনাকেও যদি দিনের পর দিন কারো চাহিদা পূরণ করতে হয় তাহলে আপনিও কি ক্লান্ত হয়ে পড়বেন না?

৮.সে আপনার অস্তিত্বের সবটুকু জুড়ে নেই: শুধু প্রতারণা নয়, ভালোবাসার মানুষটি অন্য নারীর প্রতি দুর্বল হলো কিনা তাও তার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। সে যদি সামান্যও টের পায় আপনি বাইরে কোনো নারীর প্রতি আসক্ত তাহলে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে যেকোনো সময়। আর আপনার অস্তিত্ব-জুড়ে আপনি তাকে যে জায়গা দিয়েছেন সেখানে অন্য কারো প্রবেশের বিষয়টি ধরে ফেলার এক অদ্ভুত ক্ষমতা রয়েছে নারীর।

৭.তাকে নিয়ন্ত্রণ প্রবণতায় বিরক্ত: যেসব পুরুষ নিয়ন্ত্রণ প্রবণ তাদের নারীরা জন্মগত-ভাবেই অপছন্দ করেন। আর সেই প্রবণতা যদি আপনার মাঝে থাকে তাহলে প্রথম প্রথম মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলেও এক সময় তার বিরক্তি চলে আসে। নিয়ন্ত্রণাধীন অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে আপনাকে ছেড়ে চলে যাওয়া তার জন্য কষ্টকর হলেও নিজের স্বাধীনতার জন্য সে এটা করতে পারে অনায়াসেই।

৬.আপনি একজন নেতিবাচক মানুষ: যদি আপনি সব সময় দুঃখের সাগরে সাঁতার কাটেন, নতুন কোনো কিছু করার আগ্রহ না থাকে এবং প্রতিনিয়ত তাকে বিষণ্ণতায় ডুবিয়ে রাখেন তাহলে আপনার প্রতি সহমর্মিতার পরিবর্তে বিরক্তি চলে আসবে তার। শুধু মাত্র এই কারণেই সে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে নতুন কিছুতে ব্যস্ত হওয়ার জন্য।

৫.আপনার জগৎ তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা: ভালোবাসা ভালোলাগার প্রথম দিকে আবেগ আমাদের যুক্তির দরজা বন্ধ করে দেয়, তখন ছোট খাটো ভুল ভ্রান্তি বা অপছন্দগুলো এড়িয়ে যায় কিন্তু সম্পর্কের মেয়াদ যত বাড়ে আপনার ছোট খাটো বিষয়গুলো আস্তে আস্তে তার মাথায় বোঝ হয়ে ওঠে। আর যদি সেই বোঝা হালকা করার চেষ্টা না করে আপনি আরো বোঝা চাপিয়ে দেন, তাহলে সব বোঝা ফেলে সে দৌড়ে পালাবে এটাই স্বাভাবিক।

৪.আপনি শিশুদের মত আচরণ করেন: অপরিণত মস্তিষ্ক প্রসূত শিশুতোষ আচরণ দুই এক দিন ভালো লাগে, কিন্তু সব সময়ই যদি এমন আচরণ করতে থাকেন তাহলে সে আপনার মধ্যে পৌরুষের অভাব দেখতে পাবে। আর নারীরা সবসময় বিচক্ষণ এবং দায়িত্বশীল আচরণ করে এমন পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হন। কিন্তু আপনি যদি এর ঠিক বিপরীত আচরণ করেন তাহলে তার কাছে ধীরে ধীরে আপনি গুরুত্ব হারাতে থাকবেন। যে আপনাকে গুরুত্ব দিতে পারছে না সে আপনার সাথে জীবন কাটাবে এমনটা ভাবা বোকামি।

৩.না পাওয়ার বেদনায় তাকে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে: নিঃস্বার্থ ভালোবাসা চলচ্চিত্র বা বইয়ের নায়ক নায়িকাদের কাজ, বাস্তবতা ভিন্ন কথা বলে। নারীরা প্রাকৃতিক ভাবেই পুরুষ সঙ্গীর জন্য সব ধরণের কষ্ট সহ্য করতে প্রস্তুত থাকে এবং সহ্যও করেন। কিন্তু তারও কিছু প্রাপ্তির প্রত্যাশা থাকে। আপনি যদি তার সেই প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হন এবং না পাওয়ার বেদনা তাকে কুড়ে কুড়ে খায় তাহলে সে আপনার সাথে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখবে না এটা বুঝে নেবেন।

২.আপনি কী চান সেটা তার কাছে পরিষ্কার নয়: আপনি অন্যর ঘাড়ে বসে খাবেন, আপনার সেই অবস্থা থেকে উত্তরণের কোনো চেষ্টাও নেই- এই বিষয়টি তাকে দ্বিধান্বিত করে তোলে, আসলে আপনি কী চান। আপনি কি পরনির্ভরশীল হয়েই বেঁচে থাকবেন, নাকি কোনো ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রয়েছে যখন তা সে বুঝতে পারে না তখন আপনার প্রতি তার দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয় এবং সে আপনার পরিণতি নিয়ে ভাবতে শুরু করে। আর তখনই সে বাধ্য হয়ে আপনাকে ত্যাগ করবে।

১.আপনাদের অদূর ভবিষ্যতের পরিকল্পনা সম্পূর্ণ আলাদা: আপনি হয়তো চাইছেন না এখনই বাচ্চা নিতে, কিন্তু তার প্রচণ্ড ইচ্ছা বাচ্চা নেওয়ার, অথবা আপনি দেশে কিছু করার চেষ্টা করছেন আর সে বিদেশে স্থায়ী হওয়ার কথা ভাবছে, তাহলে আপনাদের মধ্যে এ নিয়ে মতানৈক্য তৈরি হবেই। এসব বিষয়য়ে যখন পরিকল্পনার সমন্বয় আপনি করতে পারেন না তখন তার স্বপ্ন-পূরণে বিকল্প পথ ভাবতে হয়।

আর যখন সে আপনার পরিকল্পনায় সন্তুষ্ট হতে পারে না, তখন আপনাকে ছেড়ে যাওয়ার উপায় খোঁজা শুরু করে। একসময় সেই সুযোগ তৈরিও হয়ে যায়। একদিন আপনাকে ছেড়ে চলে যেতেও সে বাধ্য হয়। আপনি কি এই কারণগুলোর সাথে একমত? আপনার কি আরো কোনো কারণ জানা আছে? আমাদের জানাতে পারেন নিচের কমেন্ট বক্সে লিখে।

Leave a Reply