ব্রেকিং নিউজ

সরিষাবাড়ীতে কল্লা কাটার সন্দেহে গণপিটুনির শিকার এক মাদক সেবী

ইসমাইল হোসেন, সরিষাবাড়ি (জামালপুর) প্রতিনিধিঃ মানুষ মানুষের জন্য কথাটি সত্য হলেও দিনদিন মিথ্যার অলঙ্কারে সুসজ্জিত হচ্ছে নতুন রূপে। তার কারণ মনুষ্যত্ব বোধ আর মানবতা যেন হারিয়ে যাচ্ছে কালের আবর্তনে। হিংস্র হয়ে উঠছে মানব নামে দানব। তেমনি একটি ঘটনার সূত্রে জানা যায় জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলায় পোগলদিঘা ইউনিয়ের তারা কান্দি এলাকার কান্দাপাড়া বাজারে ছেলে ধরা তথা কল্লা কাটার সন্দেহে আটক করেছে রুবেল (৩২) নামে অজ্ঞাত এক যুবকে।

জানা যায় ২১ জুলাই সকাল ১১ টা হতে সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত কান্দাপাড়া বাজার তথা মসজিদ সংলগ্ন আশপাশ মহল্লায় এলোপাতাড়ি ঘুরতে দেখা যায় এবং বাজারে গোলাপের দোকানে চা পান করে টাকা না দিয়ে চলে যাবার সময় লোকজনের সন্দেহ হয় তার আচরণ বিধি দেখে। তাই তাকে আটক করে কান্দাপাড়া বাজারের জামে মসজিদের সম্মুখে একটি গাছের সাথে বেঁধে ফেলে বলে জানা যায়। উক্ত বিষয়টি ছেলে ধরা হিসেবে মূহুর্তের মধ্যে ছড়াছড়ি হয়ে পড়ে গ্রাম হতে গ্রামান্তরে। বাঁধভাঙ্গা পানির মতো ঢলে পড়ে জনতার স্রোত। যেন ফ্রীতে মিষ্টি বিতরণের মতো হিড়িক দিয়ে পড়তে থাকে কিল-ঘুষি লাথি।

এমন পরিস্থিতি দেখে মসজিদের ইমাম শরিফ উদ্দীন ফোন দেন মসজিদের সেক্রেটারি মতিউর রহমানকে আসতে বলেন।তিনি তৎক্ষনাৎ চলে আসেন এবং পরিস্থিতির বেগতিক দেখে এলাকার ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান ও ইসহাক আলীকে ফোন দিয়ে আসতে বলেন। তারা এসে দেখেন লোকটি আহত অবস্থায় গাছের সাথে বাঁধা। তখন তাকে উদ্ধার করে মসজিদের ভিতরে নিরাপদে রাখেন এবং তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানান। এস আই মিজানুর রহমান সাথে সাথে চলে আসেন ঘটনাস্থলে। তিনি বিষয়টি জানেন এবং লোকটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান।

এদিকে এস আই মিজানুর রহমানকে জিজ্ঞেস করলে জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তির বাড়ী টাঙ্গাইল জেলার ভুয়াপুর উপজেলার গোবিন্দাসি ইউনিয়নের কষ্টাপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল গফুর উদ্দীনের ছেলে। সে একজন মাদক সেবী। তার পরিবার তাকে পরিত্যাগ করেছে। তাই সেই এখন ভবঘুরে। মাদকের নেশায় সেই হিন্দু মুসলিম সেজে মানুষের কাছে সাহায্য চায় বলে জানা গেছে। তার মানসিক অবস্থা স্বাভাবিক নেই। সে ছেলে ধরার মতো কোন অপতৎপরতায় নেই বলেও জানান। তার কাছে তল্লাশি করে পাওয়া যায় পান সুপারি জর্দ্দা চুন,১টি আতরের শিশি ও ১ পাতা সিডিউল নামক ঘুমের ঔষধ।

এস আই মিজানুর রহমান আরও জানান আমরা অভিযুক্ত ব্যক্তি সম্পর্কে তার এলাকার মেম্বার আব্দুল কাদেরের কাছে জানতে পেরেছি তিনি একজন মাদক সেবী ছাড়া আরও অন্য কিছু নন। এবিষয়ে সরিষাবাড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ মাজেদুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবিষয়ে এখনও কোন মামলা হয়নি। তবে আটককৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা নেয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান।

Leave a Reply