ব্রেকিং নিউজ

ম্যাচ হারার কারণ কারণ হিসেবে যাকে দোষালেন মাশরাফি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত ক্রিকেট প্রদর্শন করে নিজেদের শক্তিমত্তার জানান দিয়েছে বাংলাদেশ।শুরুতে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া যখন ৩৮২ রানের টার্গেট ছুড়ে দিল, অনেকে ভেবেছিলেন ম্যাচটা হয়ত তখনই হেরে গেছে বাংলাদেশ।

কিন্তু জবাব দিতে নেমে টাইগারদের শুরুটা কিছুটা নড়বড়ে হলেও শেষ পর্যন্ত লড়াই উপহার দিল ভালোই। হারের ব্যবধান ৪৮ রানের হলেও ৩৩৩ রান কোনো অংশেই ছোট স্কোর নয়। এটাই ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর। উইন্ডিজের বিপক্ষে ৩৩০ রান ছিল আগের রেকর্ড।

মুশফিকের সেঞ্চুরি, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ঝড়ো ফিফটি আর তামিমের ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত মিলিয়ে এই ম্যাচ থেকে চাইলে ব্যাটিং থেকে অনেক ইতিবাচক বিষয় খুঁজে নিতে পারে বাংলাদেশ। এই ম্যাচে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৭ম সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন বাংলাদেশের মুশফিকুর। রিয়াদ আর সাকিবের পর তৃতীয় বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন এই ডানহাতি।

ম্যাচ শেষে আনুষ্ঠানিক আলাপকালে বাংলাদেশ দলের অধিনায়কও সতীর্থদের দুর্দান্ত ক্রিকেটের প্রশংসা করেন। একই সাথে তার মূল্যায়ন- বাংলাদেশের ইতিহাসের সেরা ওয়ানডে দল এটিই।

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ব্রেক থ্রু না পেলেও শুরুতে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করছিল টাইগাররা। তবে ব্যাটিং বান্ধব উইকেটের ফায়দা লুটে শেষদিকে মুড়িমুড়কির মত বাউন্ডারি হাঁকাতে থাকে অস্ট্রেলিয়া। তাতে তাদের দলীয় সংগ্রহ চলে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে।

মাশরাফি মনে করেন, বল হাতে ৩০ থেকে ৪০ রান বেশি দিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ। আর তাতেই হাত থেকে ফসকে গেছে ম্যাচটি। এই ম্যাচ জিতলে বাংলাদেশের সেমিফাইনালে ওঠা অনেকটাই সহজ হয়ে যেত।

মাশরাফি বলেন, ‘আমরা ৩০-৪০ রান বেশি দিয়ে ফেলেছি। অন্যথায় ফলাফল অন্যরকম হতে পারত।’

ব্যাট হাতে এদিন শতক হাঁকিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। তামিম ইকবাল পেয়েছেন হাফসেঞ্চুরি, সাকিবও দারুণ শুরু এনে দিয়েছিলেন। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বিধ্বংসী ব্যাটিং একটা সময় জয়ের আশাই জাগাচ্ছিল।

তাদের প্রশংসা করে মাশরাফি বলেন, ‘মুশফিক, সাকিব, তামিম ভালো ব্যাট করেছে। শেষদিকে রিয়াদ খুবই ভালো করছিল। আমাদের যেকোনো সময়ের সেরা ওয়ানডে দল এটাই। সত্যি বলতে আমরা প্রথম বল থেকেই ইতিবাচক ছিলাম। সৌম্য আউট হওয়ার পরও তামিম ও সাকিব দেখেশুনে খেলছিল। তবে ৩৮২ রান অনেক বড় লক্ষ্য হয়ে গিয়েছিল।’

Leave a Reply