ব্রেকিং নিউজ

প্রেমের প্রথম দেখায় মাথায় রাখুন ৮টি বিষয়

অনেকেরই কল্পনাবিলাস থাকে প্রথম দেখায় প্রেমে পড়া নিয়ে। অনেকেই ভাবেন সত্যিকারের প্রেমে মনে হয় এমনটাই ঘটে! এমন ঘটাটাই যেন মনে হয় জীবনের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি! তবে প্রেম কি আর হাতের মুঠোয় চারচৌকো বস্তুটির মধ্যে রেখে দিলে চলে! অগত্যা মাঠে নেমে পড়ো।

অনলাইন ডেটিং সাইট থেকে পরস্পরের হোয়াটসঅ্যাপে জায়গা করে নেওয়া আর তার পরের ধাপেই সাক্ষাতের পরিকল্পনা। কিন্তু কতটা নিরাপদ একজন সম্পূর্ণ অচেনা মানুষের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া? তাই এক্কেবারে অচেনা একজনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার আগে কয়েকটি জিনিস মাথায় রাখা উচিত।

নিরাপত্তা: প্রথমেই আসে নিরাপত্তার প্রসঙ্গ। যেহেতু একদম অচেনা ব্যক্তির সঙ্গে দেখা করবেন, তাই ফাঁকা নির্জন এলাকা এড়িয়ে যান। চেষ্টা করুন কোনও কফিশপ বা রেস্তোরাঁয় দেখা করার। তাও এলাকাটা নিজের চেনাজানা আয়ত্তের মধ্যে হলে ভাল হয়।

অ্যাপক্যাব: অ্যাপক্যাবে একসঙ্গে উঠলে অবশ্যই নিজের ফোন থেকে সেই ক্যাব বুক করুন। পারলে বন্ধু বা পরিবারের কারও সঙ্গে লোকেশন শেয়ার করুন। ‌হাতের কাছে মজুত রাখুন অ্যাপক্যাবের কাস্টমার কেয়ার নম্বর ও অ্যালার্ট মেনু।

হোটেল বা রিসর্ট এড়িয়ে চলুন: কোনও অচেনা এলাকা বা অন্য শহরে দেখা করতে যাওয়ার পরিকল্পনা না করাই ভাল। বিশেষ করে হোটেল বা রিসর্ট এড়িয়ে চলুন।

কোন বিষয় চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা: আপনি যার সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছেন সে কি আপনার উপরে কোনও বিষয় চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন? যেমন তার পছন্দ মতো স্থানেই যেতে হবে বা তার পছন্দ মতো খাবারই অর্ডার করতে হবে। যদি প্রথম দিনই এমন হয় তাহলে বুঝবেন সর্ম্পক গভীর হলে আপনি অবদমনের শিকার হতে পারেন।​

প্রথম দিনেই সব শেষ না করা: প্রথম দিনেই সমস্তটা বলে ফেলা যায় না। তবে চেষ্টা করুন সেই অচেনা মানুষকে মুগ্ধ করার জন্য কোনও মিথ্যে না বলতে। নজর রাখুন সেই ব্যক্তিও আপনাকে মিথ্যে কথা বলে মুগ্ধ করার চেষ্টা করছেন কি না। তবে সম্পর্কের কিছু প্রাথমিক শর্ত থাকে। সে সব প্রথম দিনই কথায় কথায় ইঙ্গিত দিয়ে রাখুন।

সাবধানতা: খেয়াল রাখুন অন্য কোনও মানুষের প্রসঙ্গ উঠলে তার সর্ম্পকে কি শুধুই নেতিবাচক মন্তব্য করছেন সেই ব্যক্তি। নিজের প্রাক্তন সঙ্গীর সম্পর্কেও যদি তিনি অনবরত নেতিবাচক মন্তব্য করে আপনার থেকে সমবেদনা পেতে চান, তাহলে সাবধান হোন। কারণ আপনিও কোনও দিন তার ‘প্রাক্তন’ হয়ে উঠতে পারেন।

নজর রাখুন: ওই ব্যক্তি কী বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করেন সে দিকে নজর রাখুন। নিজেদের পছন্দ-অপছন্দগুলো কতটা পরস্পরের সঙ্গে মানানসই সে দিকে নজর দিন। তবে অতিরিক্ত ব্যক্তিগত বিষয় টানবেন না।

ব্যবহার: কোনও রেস্তরাঁয় গেলে সেখানকার ওয়েটারদের সঙ্গে ওই ব্যক্তি কেমন ব্যবহার করেন দেখুন। শুধু তিনি মুখে কী বলছেন, তা-ই নয়, তার বডি ল্যাঙ্গুয়েজ বোঝার চেষ্টা করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*