ব্রেকিং নিউজ

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর নিকট বেতন-বৈষম্য নিরসনের ঘোষণা চাই

প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের আয়োজন করা হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের উদ্বোধন করবেন। দীর্ঘদিন ধরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকগণ বেতন-বৈষম্য নিরসনের জন্য আন্দোলন করে আসছেন। সর্বশেষ ২০১৭ সালের ২৩ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বেতন-বৈষম্য নিরসনের আশ্বাসে অনশন ভেঙ্গেছিলেন। তৎকালীন মাননীয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছিলেন বেতন গ্রেড উন্নয়ন করবেন। আজও সে আশায় গুড়েবালি। বর্তমান সরকারের নির্বাচনি ইশতেহারে বেতনগ্রেড বৈষম্য নিরসনের কথা উল্লেখ থাকায় সহকারী শিক্ষকদের মনে নতুন করে আশার সঞ্চার হয়েছে। এমনকি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা ভয়েস মেসেজের মাধ্যমে বৈষম্য দূর করণের আশ্বাস দেন। মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই তার কথা রাখবেন বলে আশা করি।

বর্তমান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী দায়িত্ব গ্রহণের পরই শিক্ষকদের বেতন-বৈষম্য নিরসনের আশ্বাস দিয়েছেন। এখন শুধু ঘোষণা বাকী। সম্প্রতি মাননীয় মন্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সময়সূচী পরিবর্তনের কথা বলেছেন যা অত্যন্ত জরুরী। দীর্ঘসময় ছাত্রছাত্রীরা বিদ্যালয়ে হাপিয়ে উঠে। তাছাড়া নারী শিক্ষকদের সংসার সামলিয়ে সকাল নয়টায় বিদ্যালয়ে উপস্থিত হওয়া খুবই দূরুহ। তাই বিদ্যালয়ের সময়সূচী কমানো অবশ্যম্ভাবী। সকাল ১০ টা হতে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত সময়সূচী হলে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রী উভয়ের সুবিধা হবে। লেখাপড়ায় গতি আসবে।

সম্প্রতি উচ্চ আদালত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষকদের ১০ম গ্রেড প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন। এটি অবশ্যই খুশির খবর। তাই দ্রুত প্রধানশিক্ষকদের ১০ম গ্রেড দিয়ে গেজেট প্রকাশ করা হোক। পাশাপাশি সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড বাস্তবায়ন করা হোক।

আসছে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন প্রধানশিক্ষকদের ১০ম গ্রেড এবং সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড প্রদানের ঘোষণা ও দ্রুত বাস্তবায়ন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করুন।

মুন্নাফ হোসেন
সহকারী শিক্ষক,
মমিনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,
ধনবাড়ী, টাংগাইল।

Leave a Reply