ব্রেকিং নিউজ

ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশে নিরাপত্তা হচ্ছে প্রশ্নবিদ্ধ!

এসএ রুবেল

নিরাপত্তা কর্মীদের চোখ ফাকি দিয়ে মাঠে প্রবেশ করা,প্রিয় তারকাকে জড়িয়ে ধরা,দেশের মাঠ গুলোর নিরাপত্তা ব্যাবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এগুলো কঠোর ভাবে দমন করতে হবে,এদের অবশ্যই শাস্তির আওতায় আনতে হবে,এদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে,এরকম আবেগ দেশের ক্রিকেটের জন্য সুখকর নয়,ভালোবাসার দোহায় দিয়ে এদের ছেড়া দেওয়া ও ঠিক না।

২০১৬ সালে আফগানদের সাথে সিরিজে মাশরাফিকে জড়িয়ে ধরে এক ভক্ত,এমন সময় জড়িয়ে ধরে যখন ইংল্যান্ড সিরিজ সামনে,ইংল্যান্ড নিরাপত্তা নিয়ে এমনিতেই প্রশ্ন তুলছে। ভ্যাগিস ঐ ঘঠনা নিয়ে ইংল্যান্ড মাথা ঘামায় নি,ইংল্যান্ড প্রশ্ন তুললে সিরিজটা অবশ্যই হুমকির মুখে পরতো।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের চলমান টেষ্টে ১ম দিনে এক ভক্ত মাঠে প্রবেশ করে মুশফিকুরকে জড়িয়ে ধরে,এবারও তাকে শাস্তি না দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয় ভালোবাসার দোহায় দিয়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতেও ঝড় ওঠে আবেগ প্রকাশের। সাহস দেখিয়ে সবার প্রশংসা কুড়িয়ে নেয় সেই ভক্তটি। কিন্তু আবেগ ও ভালোবাসা দূরে রেখে সবার ভাবা উচিত ছিলো এটা অন্যায়,এগুলো মাঠের নিরাপত্তা ব্যাবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলার উপমা হবে।

আগের ঘঠনা গুলোতে তাদের উৎসাহ দেওয়া হয়েছে,যার ফলও খুব দ্রুতই মিলেছে,আজ টেষ্টের তৃতীয় দিনেও এক ভক্ত মাঠে প্রবেশ করে সেই মুশফিককেই জড়িয়ে ধরে,বরাবরের মতো এবারো তাকে আবেগ ও ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ করা হলো

কিন্তু এভাবে চলতে থাকলে দেশের ষ্টেডিয়াম গুলোর নিরাপত্তা নিয়ে অবশ্যই কোন না কোন সময় প্রশ্ন উঠবে,যেটা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর। এখন থেকেই সব ধরণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এই বিষয়টা কোন ভাবেই সহজ নয়,বিসিবি সহ নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সবাইকে এটা ভাবতে হবে,খুব করেই ভাবতে হবে!

Leave a Reply