ব্রেকিং নিউজ

সৌম্য সরকারের ব্যাটিং তাণ্ডবে প্রস্তুতি ম্যাচে উড়ে গেল জিম্বাবুয়ে

একজন সৌম্য ও একজন ইবাদত হোসেনের কাছেই হেরে গেলো ১১ জনের জিম্বাবুয়ে দল। প্রস্তুতি ম্যাচ হলেও জিম্বাবুয়ে তাদের পূর্নাঙ্গ শক্তিশালী দল নিয়েই মাঠে নেমেছিল।

সকাল সাড়ে নয়টায় টসে জিতে ব্যাটিং করতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের তোপে ২৮ বল আগেই ১৭৮ রানে অলআউট হয়ে যায় হ্যামিল্টন মাসাকাদজার দল। তবে দলকে বলতে গেলে এদিন প্রায় একাই টেনেছেন অধিনায়ক মাসাকাদজা।

দলের অন্যান্য ব্যাটসম্যানেরা আশা যাওয়ার মধ্যে থাকলেও বিরুদ্ধ স্রোতে দাঁড়িয়ে হাঁকিয়েছেন দুর্দান্ত একটি শতক। তাঁর ১০২ রানের ইনিংসটি ছাড়াও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৭ রান এসেছে অলরাউন্ডার এল্টন চিগুম্বুরার ব্যাট থেকে। বাকি আর কেউই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছুতে পারেননি।

জিম্বাবুইয়ানদের ব্যাটিংয়ে ধ্বস নামানোর পেছনে সবথেকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন বিসিবি একাদশের পেসার এবাদত হোসেন। ৯ ওভার বোলিং করে মাত্র ১৯ রান খরচায় একাই ৫ উইকেট শিকার করেছেন তিনি।

আর ৭.২ ওভার বোলিং করে ৩২ রানে ৩ উইকেট নিয়ে এবাদতকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। এছাড়াও ১টি করে উইকেট পেয়েছেন মোহর শেখ এবং ইমরান আলি।

১৭৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ওপেনাররা ভালো শুরু এনে দিতে পারেন নি। ইনিংসের শুরুতেই রান আউটের ফাঁদে পড়ে বিদায় নিয়েছেন মিজানুর রহমান। ৮ রান আসে তাঁর ব্যাট থেকে। বর্তমানে সৌম্য সরকার এবং ফজলে রাব্বি মিলে দলের হাল ধরার চেষ্টায় আছেন।

ওয়ানডে স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া রাব্বির সামনে সুযোগ ছিল প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করে নিজেকে ঝালিয়ে নেয়ার। কিন্তু মাত্র ১৩ রান করেই সিকান্দার রাজার শিকার হয়ে বিদায় নেন এই ব্যাটসম্যান। রাব্বির বিদায়ে ক্রিজে আসেন মোসাদ্দেক হোসেন।

এরপরে গল্পটা শুধুই সৌম্য সরকারের। ম্যাচের ৩৪ তম ওভারে ৩৫ রান করে অপরাজিত থেকেই রেস্টে চলে যান মোসাদ্দেক কিন্তু অপর প্রান্তে থাকা সৌম্য তুলে নেন দূর্দান্ত এক সেঞ্চুরি।

১৩টি চার এবং ১ ছক্কার সাহায্যে ১১১ বলে সৌম্যর ১০০ রানের অপরাজিত ইনিংসে ভর করে হাতে ৮ উইকেট বাকি রেখে ৩৬তম ওভারেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় বাংলাদেশ।

Leave a Reply